২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ভোট চান হিরো আলম

বগুড়া প্রতিনিধি
spot_img

হিরো আলম বলেছেন, ‘সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের স্যার বলছেন, হিরো আলম জিরো হয়ে গিয়েছে। হিরো আলম কখনও জিরো হয়নি। যারা হিরোকে জিরো বানাতে চায় তারাই জিরো হয়ে গিয়েছে।

সেতুমন্ত্রী আমাকে তাচ্ছিল্য করে কথা বলেছেন। তবে একজন মন্ত্রী দেশের নাগরিককে তাচ্ছিল্য করে কথা বলতে পারেন না। তিনি কথায় কথায় বলেন আসুন খেলা হবে। শক্তিশালী দলের সাথে খেলতে চান।

রবিবার দুপুরে বগুড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) উপ-নির্বাচনে ভোট পুনঃগণনার আবেদন জমা দিতে এসে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম এ কথা বলেন।

তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতার চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তত্ত্ববধায়ক সরকারের অধীন ভোট চেয়েছেন ।

হিরো আলম বলেন, ‌‘আমার নির্বাচনী ফলাফল তারা সুষ্ঠভাবে সম্পূর্ণ করেনি। এ নিয়ে আমার সন্দেহ ছিল। তাই সবগুলো ভোট কেন্দ্রের ফলাফল আমি সংগ্রহ করেছি। কিছু কেন্দ্রে আমিসহ প্রায় সব প্রার্থী অস্বাভাবিক ভোট পেয়েছে।

ওই কেন্দ্রগুলো উল্লেখ করে দিয়ে আমি জেলা প্রশাসকের কাছে ভোট পুনঃগণনার আবেদন দিয়েছি। তারা আমার আবেদন নিয়েছে। তবে কবে ফলাফল আবারও গণনা করবে সেই বিষয়ে কিছু জানায়নি। যদি তারা সাড়া না দেয় আমি হাইকোর্টে যাবো। ’

বিএনপি হিরো আলমের পক্ষে কাজ করছে কিনা গণমাধ্যমের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বিএনপি আমার পক্ষে কাজ করলে ভোটের দিন তারা মাঠেই থাকতো। বিএনপির কোনো লোক আমার সঙ্গে ছিল না। এসব কিছু লোকের বানানো কথা। শুধু বিএনপির মির্জা ফখরুল স্যার নয়, সারাবিশ্ব ও বাংলাদেশ আমার পক্ষে কথা বলেছেন।

ভোট করার বিষয়ে হিরো আলম বলেন, আমি ওবায়দুল স্যারকে জোড় গলায় বলতে চাই, খেলা সবার সাথে করতে হবে না৷ আমার (হিরো আলম) সাথে একটা নির্বাচনে আপনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ও আপনি দলীয়ভাবে দাঁড়ান। এরপর আপনি সুষ্ঠ নির্বাচন দিয়ে দেখেন খেলা হয় কিনা ৷ খেলার জন্য নাকি উনি মাঠে প্লেয়ার খুঁজে পান না৷ আমার সঙ্গে কেন্দ্রে সিসিক্যামেরা দিয়ে ভোটারদের ভয় না দেখিয়ে সুষ্ঠ ভোট দিয়ে দেখেন। উনি কেন আমাকে ছোট করে কথা বলেন। উনাকে বলবো বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) থেকে ভোট করুন আমাকে যেই আসন থেকে পরাজিত করে দেওয়া হয়েছে।

হিরো আলম আরও বলেন, ‌‘আমি সুষ্ঠ নির্বাচন চাই। আগামীতে তত্ত্ববধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন চাই, যেখানে সব দল অংশ নেবে। সবাই নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারবে। ’

গত ১ ফেব্রুয়ারি বগুড়া-৪ এবং বগুড়া-৬ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন হিরো আলম। বগুড়া-৪ আসনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জাসদ প্রার্থীর কাছে ৮৩৪ ভোটে হেরে যান তিনি।

সর্বশেষ নিউজ