২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

এখন বিপ্লবের সময় নয়, হজম করার সময়

শংকর মৈত্র
spot_img

এক টেলিভিশনের নিউজের প্রধান, আড্ডায় নানা আক্ষেপ প্রকাশ করছেন। বলছেন, দুর্নীতিবাজরা দেশের টাকা পাচার করছে, ব্যাংক লুট হচ্ছে, ঋণ খেলপিদের কাছ থেকে টাকা উদ্ধার করতে পারলে আইএমএফ থেকে লোন নেয়া লাগতো না। সরকার যে কি করছে!!!

বললাম, এগুলো নিয়ে খবর প্রচার করা যায় না? ঋণ খেলাপিদের তালিকা ধরে ধরে সিরিজ রিপোর্ট করান। জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক হিসেবে আপনার দায়িত্ব রয়েছে।

তিনি ক্ষেপে গিয়ে বললেন, “পাগল হইছো নি! অামার চাকরি থাকবো? ”

বললাম তা হলে আর আক্ষেপ করার দরকার কি? চুপ হয়ে থাকেন। চাকরি বাঁচান আগে। নিজে বাঁচলে বাপের নাম। যা পারবেন না, করা যাবে না তা নিয়ে কথা বলারই দরকার নেই। বর্তমান জামানায় টিকে থাকতে হলে স্রোতে মিশে যেতে হবে। উজান ঠেলার সময় এখন নয়। মনে মনে প্রতিবাদ আর ঘৃণা প্রকাশ করা ছাড়া প্রকাশ্যে কিছুই বলা যাবে না।

আমার এসব কথাবার্তা অনেকে অনেকভাবে নেন। আমি বলি এখন বিপ্লবের সময় নয়। বিশেষ করে সাংবাদিকদেরতো নয়ই। এখন হজম করার সময়। দেখে যাওয়ার সময়। সাংবাদিকতার প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিকানা যাদের হাতে তারা সবাই সরকারের অংশীদার, ক্ষমতার অংশীদার, ব্যবসার অংশীদার। ক্ষমতার পট পরিবর্তন হলে তারাও পরিবর্তন হয়। কোনো সমস্য হয় না। তাদের স্বার্থের বিরুদ্ধে কোনো খবর প্রচার, প্রকাশ করা যেমন সম্ভব নয় তেমনি আপনি যতো বড় সাংবাদিকই হোন, তাদের প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে তাদের নীতির বিরুদ্ধে খবর প্রচার করলে চাকরি, সঙ্গে সঙ্গে’ নট’। এমন অনেক উদাহরণ আছে। কাজেই বিপ্লব, প্রতিবাদ কিছুই করার সময় নয়। তার চেয়ে ভাল সুশীল সেজে মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে টেলিভিশনের টকশোতে জাতিকে জ্ঞান দেয়া।

ছোট্ট দেশ। এর ওপর তথ্য প্রযুক্তির যুগ। কোনো কিছুই গোপন রাখার উপায় নেই। খবরাখবর কিন্তু মেলে। কে টাকা পাচার করছেন, কে কতো টাকা বেতন পান, কার আমেরিকায় বাড়ি আছে কার কানাডা বা অস্ট্রেলিয়ায় সবই জানা যায়। দেশটা তো ছোট। উপরের পর্যায়টা আরও ছোট। যোগাযোগ থাকলে সব গল্পই শোনা যায়। বেলজিয়াম, লন্ডন, সুইজারল্যান্ড কেউ কেউ ঘন ঘন কেনো যান, সেখানে কি করেন তাদের লোকজনই বলে দেয়।

কেউ একজন বিদেশে অবৈধভাবে টাকা পাঠিয়ে সেটা রেমিটেন্সে এনে অভিজাত এলাকায় বাড়ি কিনেছেন সে খবরও জানা হয়ে যায়। কোন খাত থেকে কে কি নেন তাও অজানা থাকে না। কেউ খবর রাখে না ভাবলে ভুল হবে। ক্ষমতার চেয়ারে বসে নিচের দিকে তাকান না বলেই হয়তো ভাবেন কেউ খবর রাখে না। রাখে রাখে। যারা খবর রাখার তারা ঠিকই খবর রাখে। সময় মতো তারা খবর বের করে। এ জন্য বলা হয় সময়ই সর্বোৎকৃষ্ঠ উত্তরদাতা।।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক

সর্বশেষ নিউজ