২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

‘আমাকে নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের দিন শেষ’

নিজস্ব প্রতিবেদক
spot_img

টিকটক ও ইউটিউবার আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম এখন অনেকটা চাঙ্গা। রাজনীতির মাঠে নেমে তিনি নিজেকে অনেকটাই পরিবর্তন করে ফেলেছেন। পোশাক-আশাক থেকে শুরু করে চাল-চলন এবং কথা-বার্তায় নিজেকে বেশ বদলে ফেলেছেন। তিনি যে এখন গুছিয়ে কথা বলতে পারেন সেটি ডয়চে ভেলে’র সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎকারে কিছুটা প্রমাণও মিলেছে।

উপস্থাপক খালেদ মহিউদ্দিন হিরো আলমের কথা শুনে অনেকটা বিস্মিত হয়ে বলেন, আপনি তো সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের মতই কথা বলছেন। তারা যেভাবে কথা বলেন এবং সমাজ নিয়ে চিন্তা করেন সেভাবেই প্রকাশ করছেন। বাস্তবেও হিরো আলম নিজেকে শুধরে নেবার চেষ্টা করছেন। তাঁর কথা থেকেই সেটি স্পষ্ট।

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে হিরো আলম নতুন বোমা ফাটিয়েছেন। বলেছেন, আমাকে নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের দিন শেষ। কেউ আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করুক বা ট্রল করুক এমন কোন অভিনয়, নাটক সিনেমা বা গান করবো না। যে কাজই করি তা যেন মানুষের কাজে লাগে তা বিবেচনায় রাখবো।

এইদিন এইসময়ের সঙ্গে আলাপকালে হিরো আলম আরও বলেন, আমাকে নিয়ে যারা হাস্যরস করে বা ব্যাঙ্গ করে তারা একদিন থেমে যাবে। আমি ধৈর্যের সঙ্গে অনেককিছু মোকাবেলা করেছি ভবিষ্যতেও করবো। হিরো আলম একদিনে তৈরি হয়নি। তাই কারো মন্তব্যে একদিনেই শেষও হয়ে যাবে না।

নির্বাচনে যারা তাঁর বিরুদ্ধাচারণ করেছে তাদের ইঙ্গিত করে হিরো আলম বলেন, আল্লাহ তাদের হেদায়েত দিন কিংবা ধ্বংস করে দিক।

সম্প্রতি বগুড়ার দু’টি আসনের উপনির্বাচনে অংশ নেন হিরো আলম। এরমধ্যে একটি আসনে মাত্র ৮৩৪ ভোটে মহাজোটের প্রার্থীর কাছে হেরে যান। যদিও তিনি এই হারকে মেনে নেননি। তিনি অভিযোগ করেছেন, ভোট সুষ্ঠু হলেও মেশিনের মাধ্যমে তাকে হারানো হয়েছে। তিনি এই বিষয়ে উচ্চ আদালতের আশ্রয় নিবেন বলেও জানান। বগুড়ার অপর আসনে অবশ্য তিনি জামানত হারান। ঐ আসনে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হন।

এর আগে ২০১৮ সালেও তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। সে বছর তিনি সামান্য পেয়েছিলেন। তবে এবারের নির্বাচনে তিনি সারাদেশের মানুষের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন।

স্থানীয় ভোটাররা লোভ-লালসার উদ্ধে উঠে ভোট দিয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি। ভবিষ্যতে রাজনীতির মাঠ ছাড়বেন না বলেও সবাইকে জানিয়ে দেন। আওয়ামী লীগের তরফ থেকে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিযোগ করেছিলেন, হিরো আলমকে বিএনপি সমর্থন দেওয়ায় সে এত ভোট পেয়েছে।

বিএনপি সে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, মানুষ হিরো আলমকে নয় বরং সরকারের বিপক্ষে ভোট দিয়েছে। হিরো আলম বিএনপির প্রার্থী ছিল না বলেও জানিয়েছিলেন জানান দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

হিরো আলমকে নিয়ে আরও কিছু সময় রাজনৈতিক ময়দানে বিতর্ক চলবে বলেও ধারণা বিশ্লেষকদের।

সর্বশেষ নিউজ