২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

“ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে নাস্তিক বানানোর ষড়যন্ত্র নিয়ে সিলেবাসে আমূল পরিবর্তন আনা হয়”

ডেস্ক রিপোর্ট
spot_img

 

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র আমীর ও চরমোনাইয়ের পীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম চরমোনাই বলেছেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে নাস্তিক বানানোর গভীর ষড়যন্ত্র নিয়ে শিক্ষা সিলেবাসে আমূল পরিবর্তন আনা হয়েছে। ইসলামী শিক্ষাকে সিলেবাস থেকে বিতাড়ন করা হয়েছে এবং সার্বিক পর্যালোচনায় এমন বহু বিষয় আছে যা এদেশের মানুষের বোধ-বিশ্বাস, ও সামাজিক পুঁজির সাথে সাংঘর্ষিক।

শুক্রবার সকালে ঐতিহাসিক চরমোনাই বার্ষিক ফাল্গুনের মাহফিলের ৩য় দিন সকালে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে আয়োজিত ছাত্র গণজমায়েতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পীর সাহেব চরমোনাই উপর্যুক্ত মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন,বিজ্ঞানের নামে বিজ্ঞান অসমর্থিত বিষয় পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। দেশের সচেতন শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ প্রজন্মকে নাস্তিক বানানোর নীল নকশা ও চক্রান্ত রুখে দিবে।

ষচরমোনাই পীর আরো বলেন, ১৯৯১ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ সারাদেশে আদর্শিক ছাত্র রাজনীতি চর্চা করছে। শিক্ষার্থীদের নৈতিক ও চারিত্রিক অবক্ষয় রোধে ছাত্র আন্দোলনের কার্যক্রম প্রশংসনীয়। দেশময় পরিশুদ্ধ নেতৃত্ব গড়তে শিক্ষার্থীদের ইসলামী ছাত্র আন্দোলনে বাংলাদেশ’র সাথে সম্পৃক্ত হয়ে আদর্শিক জীবন গঠনের আহ্বান জানান তিনি।

ছাত্র গণজমায়েতে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়াম সদস্য হযরত মাওলানা নুরুল হুদা ফয়েজী, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ুম, মাওলানা লোকমান হোসেন জাফরী, মাওলানা নেছার উদ্দিন, জি এম রুহুল আমীন, মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ লতিফ, নুরুল করীম আকরাম, মাওলানা নুরুল ইসলাম আল-আমিন প্রমুখ।

ছাত্র গণজমায়েতে বক্তারা বলেন, আমরা উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করেছি, বইয়ের বিভিন্ন গল্পের উদাহরণে যেসব চরিত্র ব্যবহার করা হয়েছে তাদের অধিকাংশের নামে দেশীয় ছাপ নেই বরং সুকৌশলে পাশ্চাত্য এবং ব্রাহ্মণ্যবাদী বিভিন্ন নাম ও প্রতীক ব্যবহার করে সাংস্কৃতিক অগ্রাসন চালানো হয়েছে । ভুলে ভরা পাঠ্যবই রচনার সাথে জড়িতদের ভিন্ন কোন রাজনৈতিক দুরভিসন্ধি আছে কিনা তা খুঁজে বের করতে হবে এবং তাদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। বক্তারা আরো বলেন, এই বই সংশোধন না বরং বাতিল করতে হবে এবং সত্যনিষ্ঠ শিক্ষাবিদ ও উলামায়ে কেরামের সমন্বয়ে নতুন করে বই রচনা করতে হবে।

ছাত্র গণজমায়েতে সভাপতিত্ব করেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ- এর কেন্দ্রীয় সভাপতি শরিফুল ইসলাম রিয়াদ। আরো বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি নূরুল বশর আজিজী, সেক্রেটারি জেনারেল ইউসুফ আহমাদ মানসুর।

এদিকে, আজ শুক্রবার দেশের বৃহৎ জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয় চরমোনাই ময়দানে। দুপুরে নায়েবে আমীরুল মুজাহিদীন আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীমেরইমামতিতে এ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

আগামীকাল শনিবার সকাল ৮.৩০টায় চরমোনাই পীরের আখেরি বয়ানের মধ্য দিয়ে তিন দিনব্যাপী বিশাল এ মাহফিলের কার্যক্রম শেষ হবে।

সর্বশেষ নিউজ