২৪ মে ২০২৪, শুক্রবার

পেঁয়াজের দরে বড় পতন

ডেক্স রিপোর্ট
spot_img

বাংলাদেশের জন্য ১ হাজার ৬৫০ টন পেঁয়াজ কিনছে ভারত। এই খবরে দেশের বাজারে মসলাজাতীয় পণ্যটির দরে বড় পতন ঘটেছে। মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) রাজধানীর কাঁচাবাজার ঘুরে এমন তথ্য মিলেছে।ঢাকার নর্দ্দা, নতুনবাজার, কারওয়ানবাজার, মগবাজারে দেখা যায়-এদিন প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। গত সপ্তাহে যা ছিল ১০০ থেকে ১১০ টাকা। সেই হিসাবে সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিপ্রতি পেঁয়াজের দাম কমেছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা।

নতুনবাজারের ব্যবসায়ী বিশারত আলি বলেন, বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ ভালো আছে। পাবনা ও ফরিদপুর থেকে পণ্যটি প্রচুর আসছে। তাই দর হ্রাস পেয়েছে। আগের সপ্তাহে সাধারণ মানের পেঁয়াজের দাম ছিল ৮০ থেকে ৯০ টাকা। এই সপ্তাহে সেটা বেচছি ৫০ থেকে ৬০ টাকায়। মাত্র ২/৩ টাকা লাভে তা বিক্রি করছি আমরা।

নর্দ্দা কাঁচাবাজারের ব্যবসায়ী রহিম মিয়া বলেন, গত কয়েকদিন ধরেই পেঁয়াজের দাম কমছে। এখন ভালো মানের পেঁয়াজ বিক্রি করছি ৬০ টাকায়। সপ্তাহখানেক আগেও যা ছিল ১০০ টাকা। তবে মূল্য কেন কমছে বা বাড়ছে-সেই সম্পর্কে আমি কিছু জানি না। সাধারণত, আমরা যেমন দামে কিনি, তেমন দামেই বিক্রি করি।

ভারতের পেঁয়াজ এলে দাম আরও কমবে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে মগবাজারের ব্যবসায়ী রহিম মিয়া বলেন, দেশটি থেকে পণ্যটি কখন আসবে, এই সম্বন্ধে কিছু জানি না। অনেক দিন ধরেই শুনছি, আসবে কিন্তু আসছে না। তবে এলেও যে বাজারে খুব প্রভাব পড়বে তেমনটা বলা যাবে না। এখন যেমন আছে, তেমনই থাকতে পারে।

সেখানে কিনতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, গত সপ্তাহে ১ কেজি পেঁয়াজ কিনেছি ৯০ টাকায়। এদিন কিনলাম ৫৫ টাকায়। আমাদের দেশের ব্যবসায়ীদের মন বোঝা বড় দায়? কি এমন হলো যে দর হঠাৎ এত কমে এলো?

বাংলাদেশে পাঠাতে কৃষকদের কাছ থেকে ১ হাজার ৬৫০ টন পেঁয়াজ কিনছে ভারত। সোমবার (১৮ মার্চ) দেশটির রপ্তানি সংস্থা ন্যাশনাল কো অপারেটিভ এক্সপোর্ট লিমিটেড (এনসিইএল) এমন তথ্য জানায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতি কেজি এই পেঁয়াজের দাম পড়বে ২৯ রুপি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৩৮ টাকা ৪০ পয়সা। এই সংবাদেই রান্নাঘরের মুখ্য পণ্যটির দরপতন ঘটছে।

সর্বশেষ নিউজ