২৪ মে ২০২৪, শুক্রবার

ব্রাজিলে বন্যায় মৃত্যু বেড়ে ৭৫, নিখোঁজ শতাধিক

আন্তর্জাতিক ডেক্স
spot_img

ব্রাজিলে ব্যাপক বন্যায় ৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ১০০ জনেরও বেশি লোক এখনও নিখোঁজ হয়েছে, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ রবিবার (৫ মে) জানিয়েছে। সোমবার (৬ মে) দেশের দক্ষিণে রিও গ্র্যান্ডে ডো সুল জুড়ে বৃষ্টিপাত শুরু হওয়ার পর থেকে আশি হাজারেরও বেশি মানুষ তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে।

মার্কিনভিত্তিক সংবাদসংস্থা স্কাইনিউজের প্রতিবেদনে প্রকাশ যে, প্রায় পনের হাজার মানুষ স্কুল, জিম এবং অন্যান্য অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় চেয়েছেন এবং আট লক্ষ মানুষ সুপেয় পানির অভাবে দিব কাটাচ্ছে বলে মনে করা হয়। ব্রাজিলে দীর্ঘমেয়াদী বন্যার কারণে ভূমিধস হয়েছে, কোথাও কোথাও সেতু ভেঙে পড়েছে এবং রাজ্যজুড়ে রাস্তাগুলি নদীতে রূপান্তরিত হয়েছে।

বন্যার কারণে গত শুক্রবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ফ্লাইট স্থগিত করেছে পোর্তো অ্যালেগ্রে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর।

শহরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হওয়া গুয়াইবা নদীর পানির উচ্চতা রোববার সকালে সর্বোচ্চ ৫.৩৩ মিটার বেড়েছে। ১৯৪১ সালে বিধ্বংসী বন্যার সময় ওই নদীর পানির উচ্চতা বেড়েছিল ৪.৭৬ মিটার, যা এবারের বন্যার সময়ের চেয়ে যথেষ্ট কম।

শনিবার ক্যানোয়াস শহরে লোকেদেরকে নরম কাদার মধ্যে আটকে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এক সপ্তাহেরও কম সময়ে রাজ্যের কিছু অংশে ১১.৮ ইঞ্চি বা ৩০ সেমি বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়।

ব্রাজিলিয়ান ভূতাত্ত্বিক সংস্থা বলেছে, নির্দিষ্ট কিছু শহরে এই বৃষ্টিপাত ১৫০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।

গত বৃহস্পতিবার বন্যাকবলিত অঞ্চলটি পরিদর্শন করেছেন ব্রাজিলিয়ান প্রেসিডেন্ট লুলা ডি সিলভা। এই বিপর্যয়ের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করেছেন তিনি।

পোপ ফ্রান্সিস রবিবার ভ্যাটিকানে গণসমাবেশের সময় ধ্বংসযজ্ঞের কথা উল্লেখ করেন। “প্রভু যেন মৃতদের স্বাগত জানান এবং তাদের পরিবারকে এবং যাদের বাড়িঘর ত্যাগ করে গিয়েছেন, তাদের সান্ত্বনা দিন,” তিনি বলেন।

জলবায়ু বিশেষজ্ঞ ফ্রান্সিসকো এলিসেউ অ্যাকুইনো বলেছেন, বিশ্বব্যাপী উষ্ণায়ন এবং আবহাওয়ার এল নিনো পরিস্থিতির ‘বিপর্যয়কর মিশ্রণের’ ফলাফল ছিল ব্রাজিলে আঘাত হানা সাম্প্রতিক বিধ্বংসী ঝড়।

সর্বশেষ নিউজ