২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ : উদ্ধার কাজ চলছে আজও

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
spot_img

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিস্ফোরণ ও আগুনের ঘটনায় রাতে স্থগিত হওয়া উদ্ধার কাজ শুরু হয়েছে। রবিবার সকাল ৮টার দিকে দ্বিতীয় দিনের মতো উদ্ধার কাজ শুরু হয়।

সীতাকুণ্ডের কদমরসুল এলাকায় শনিবার বিকালে অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিষ্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ড হয়। ফয়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিট রাতে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে রাত আটটার দিকে ওই প্ল্যান্টে উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়। এদিকে দুর্ঘটনা তদন্তে গঠিত হয়েছে দুটি কমিটি।

এ ঘটনায় এ পর্যন্ত ৬ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৩০ জন। রাতে আহত অন্তত ২০ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে পাঁচজনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পুলিশের সহকারী উপপরির্দক (এএসআই) মো. আলাউদ্দিন তালুকদার।

যেসব মরদেহের পরিচয় মিলেছে, সীতাকুণ্ডের জাহানাবাদ এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে শামছুল আলম (৫৬), ভাটিয়ারীর আবুল বাশার মিয়ার ছেলে ফরিদ (৩৬), নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দার চিকিরঙ্গী লকরেটের ছেলে রতন লকরেট (৪৫), লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগরের মফিজুল হকের ছেলে সালাউদ্দিন (৪১), নোয়াখালী জেলার মাইজদীর মৃত মকবুল আহমদের ছেলে আবদুল কাদের। নিহত আনুমানিক ৪৫ বছর বয়সী একজনের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।

চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান জানিয়েছেন, হাসপাতালে আনা রোগীদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত রয়েছে।

রাতে হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, আহত কারো পা থেঁতলে গেছে, কেউ মাথায় আঘাত পেয়েছেন। কারও চোখে জখম, কারও বুকে-পিঠে মারাত্মক আঘাত। আহতদের সঙ্গে হাসপাতালে ভিড় করছেন তাদের স্বজনরাও। একদিকে আহতদের আর্তনাদ, অন্যদিকে স্বজনদের আহাজারি। সব মিলে চট্টগ্রাম মেডিকেলের পরিবেশ ভারি হয়ে উঠেছে।

জানা গেছে, পারভেজ উদ্দিন সান্টু নামে এক ব্যক্তি সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টের মালিক। তবে দুর্ঘটনার পর এখন পর্যন্ত তাকে পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, সীতাকুণ্ডের একই এলাকায় ২০২২ সালের ৪ জুন রাতে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে অর্ধশত প্রাণহানির সঙ্গে বহু মানুষ আহত হন।

সর্বশেষ নিউজ