২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার
--বিজ্ঞাপন-- Bangla Cars

হজ্জযাত্রীদের খরচ ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা করার দাবিতে কর্মসূচি 

নিজস্ব প্রতিবেদক
spot_img

এবারের হজে গমনেচ্ছুদের খরচ ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা করার দাবিতে আগামী ২২ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি দেবে ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ। বিমান ভাড়া হ্রাস এবং হজ্জ প্যাকেজ থেকে সকল প্রকার ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার করে ভর্তুকি দিয়ে হলেও পাশ্ববর্তী দেশগুলোর সাথে মিল রেখে হজের খরচ পুনঃনির্ধারণের দাবি তাদের।

সংগঠনটি বলছে,আগামী ২০ মার্চের মধ্যে বাংলাদেশের হজ্জ যাত্রীদের খরচ ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা পুনঃনির্ধারণ করাতে হবে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ এই দাবি জানায়।

মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ সভাপতি শহিদুল ইসলাম কবির বলেন,২০ মার্চের মধ্যে যদি এ বিষয়ে সন্তোষজনক সিদ্ধান্ত নেয়া না হয় তবে আগামী ২২ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।

তিনি বলেন, মাহে রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক উর্ধ্বগতি, হজ্জ পালনে অস্বাভাবিক ও অতিরঞ্জিত খরচ নির্ধারণ করে অমানবিক প্যাকেজ ঘোষণা এবং কুরবানীর সময়ে কুরবানির পশুর চামড়ার মূল্য কমিয়ে সরকার ধর্মপ্রাণ মুসলমানদেরকে ধর্মকর্ম পালনে কৌশলে নিরুৎসাহিত করছে।

শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, সরকারের উদাসিনতা, অবহেলা এবং দুর্নীতিবাজ ও মুনাফাখোরদের নিয়ন্ত্রণহীন আধিপত্যে মুসলিম প্রধান স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে ধর্ম কর্ম পালন করা দিন দিন কঠিন থেকে কঠিন হয়ে পড়ছে।

তিনি বলেন, মাহে রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি রোধ করে সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখা সরকারের প্রধান কর্তব্য থাকলেও তারা তা পালনে বছরের পর বছর ব্যর্থ হয়ে মিডিয়ার সামনে আওয়াজ দিয়ে যাচ্ছে। বাস্তবে তাদের কোন কর্মতৎপরতা আছে বলে মনে হয় না।

শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, হজ্জের খরচ কমিয়ে প্যাকেজ ঘোষণা করা সরকারের দায়িত্ব হলেও তা করা হয়নি। সিন্ডিকেটের সদস্যদের লাভবান করতে সাধারণ ধর্মপ্রাণ হজ্জ যাত্রীদের কষ্টের জমানো অর্থ দিয়ে বিমানের লোকসান কাটিয়ে লাভবান করতে প্রায় ১ লাখ টাকা বিমান ভাড়া বৃদ্ধি করেছে। যেখানে সরকারের ভর্তুকি দেবার কথা, সেক্ষেত্রে ভ্যাট ট্যাক্স আরোপ করে অমানবিক হজ্জ প্যাকেজ ঘোষণার মাধ্যমে সরকার মানুষের ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত হানছে। কুরবানির সময়ে কুরবানির পশুর চামরার মূল্য কমিয়ে দিয়ে গরীবের হক নষ্ট করে অমানবিক কাজ করে যাচ্ছে।

ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ সাধারণ সম্পাদক মুফতী মুহাম্মাদ মোস্তাফিজুর রহমানের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহাদুজ্জামান মোল্লা, মোঃ আবু শোয়াইব খান,মোঃ আবদুল কুদ্দুস, মোঃ আবদুর রাজ্জাক, মুফতি মুজিবুর রহমান, মোঃ শফিকুল ইসলাম বিশ্বাস ও মুফতী ইসহাক মোহাম্মদ আল আমিন।

সর্বশেষ নিউজ